অনশন কর্মসূচির ১২তম দিনে এ পর্যন্ত ১৮২ শিক্ষক-কর্মচারী অসুস্থ

অনলাইন ডেস্ক: এমপিভুক্তির দাবি পূরণের লক্ষে শুরু করা অনশন কর্মসূচির ১২তম দিনে এ পর্যন্ত ১৮২ শিক্ষক-কর্মচারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। পাশাপাশি ৫০ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার।

অনশনে অংশ নেওয়া শিক্ষকরা বলেন, চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী এমপিওভুক্তির প্রতিশ্রুতি দিলে, শিক্ষকরা আনন্দে আত্মহারা হয়েছিল। কিন্তু ২০১৮-১৯ সালের অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায় আবারো শিক্ষকদের গভীর অন্ধকারে তলিয়ে যেতে হচ্ছে। ভাবতে অবাক লাগে সরকার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না করে, শিক্ষামন্ত্রী প্রহসনের এমপিও নীতিমালা করে শিক্ষকদের রাজপথে ঠেলে দিলেন। দিন-রাত রোদ-বৃষ্টির মাঝে শিক্ষকরা পরিবার-পরিজন ছেড়ে রাজপথে অমানবিকভাবে, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আমরণ অনশন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে হাসপাতাল থেকে আন্দোলনে ফিরেছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদু্ন্নবী ডলার। তিনি জানান, আমি নিজেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। সেখান থেকে ফিরেছি। ১৮২ জন অসুস্থ হয়েছে গতকাল রাত পর্যন্ত। তাদের কাউকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের স্যালাইন লাগানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১২ জুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল-কলেজ) এর জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০১৮ জারি করা হয়েছে। এই নীতিমালা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান অনুমতি ও স্বীকৃতির সময় আরোপিত শর্তের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। চলতি ২০১৮-১৯ বাজেটে নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য বরাদ্দের কোনো সুস্পষ্ট ঘোষণা নেই। যার ফলে নন-এমপিও শিক্ষক কর্মচারীর অত্যন্ত হতাশ ও আশাহত হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় মহামান্য রাষ্ট্রপতির হস্তক্ষেপে সারা দেশের নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একযোগে এমপিওভুক্তি হলে সকলেই সন্তুষ্ট চিত্তে বাড়ি ফিরে যাবে।

সুত্র- কালের কণ্ঠ